সিআইএ প্রধানের ইমেইল ফাঁস করল উইকিলিকস Print

সিআইএ প্রধানের ইমেইল ফাঁস করল উইকিলিকস যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সির (সিআইএ) প্রধান জন ব্রেনানের কয়েকটি ইমেইল ফাঁস করেছে সাড়া জাগানো ওয়েবসাইট উইকিলিকস।

বার্তা সংস্থা এএফপি এক প্রতিবেদনে বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, বুধবার উইকিলিকসের টুইটার অ্যাকাউন্টে ব্রেনানের ছয়টি নথি ফাঁস করা হয়। তাদের দাবি, এসব তথ্য সিআইএ-এর পরিচালক ব্রেনানের ব্যক্তিগত ইমেইল থেকে নেওয়া হয়েছে।

১৩ বছর বয়সী স্কুলপড়ুয়া মার্কিন এক কিশোর ব্রেনানের এওএল ইমেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাকিংয়ের দাবি করার একদিন পর ব্রেনানের এই গোপন নথি প্রকাশ করল উইকিলিকস।

২০১৩ সালে সিআইএ-এর প্রধান হওয়া ব্রেনান এর আগে চার বছর মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা ও সন্ত্রাসবাদ বিষয়ক সহকারী হিসেবে কাজ করেন। ইমেইল ফাঁসের বিষয়টি মার্কিন গোয়েন্দা প্রধানকে বেশ বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলেছে বলে জানিয়েছে এএফপি।

এ ঘটনায় উইকিলিকসকে ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট ‘হ্যাকিং’-এর দায়ে অভিযুক্ত করেছে সিআইএ। এক বিবৃতিতে তারা বলেছে, ‘ব্রেনানের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট হ্যাকিং একটি অপরাধ এবং ব্রেনানের পরিবার এর ভুক্তভোগী। এ ধরনের আক্রমণ কারো ওপরই হওয়া উচিত নয়; একে উৎসাহিত করাও ঠিক নয়।’

সিআইএ-এর দাবি, এখন পর্যন্ত উইকিলিকসের ফাঁস করা ইমেইলে গোপনীয় নথি প্রকাশের কোনো ইঙ্গিত পাওয়া পায়নি।

তবে উইকিলিকস বলছে, ‘ইমেইল অ্যাকাউন্টটি মাঝে মাঝে গোয়েন্দা কার্যক্রমেও ব্যবহার করতেন ব্রেনান। সামনের দিনগুলোতে সিআইএ প্রধানের এ ধরনের আরও কিছু নথি প্রকাশ করা হবে।’

এএফপির প্রতিবেদেনে বলা হয়েছে, উইকিলিকসের ফাঁস করা ইমেইলের মধ্যে সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদে মার্কিন গোয়েন্দাদের নিষ্ঠুর পদ্ধতি নিয়ে ২০০৮ সালে মার্কিন সিনেটের সিলেক্ট কমিটির চেয়ারম্যানের একটি চিঠিও রয়েছে। অন্য সদস্যদের কাছে পাঠানো ওই চিঠিতে দেখা যায়, কমিটির চেয়ারম্যান ক্রিস্টোফার বন্ড নিষ্ঠুর জিজ্ঞাসাবাদ পদ্ধতি নিষিদ্ধের কথা বলেছেন।

এছাড়া ২০০৭ সালে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ে ব্রেনানের করা ৪৭ পৃষ্ঠার একটি খসড়া নথিও ফাঁসের তালিকায় রয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, উইকিলিকস ইমেইলগুলো প্রকাশের আগে গত সোমবার ‘ক্র্যাকা’ নামের একটি টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ব্রেনানের ব্যক্তিগত ইমেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাকিংয়ের দাবি করা হয়। যে ব্যক্তি ব্রেনানের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করেছে তার সঙ্গে উইকিলিকসের যোগাযোগ থাকতে পারে বলে ধারণা মার্কিন গোয়েন্দাদের।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের লাখ লাখ গোপন নথি ফাঁস করে দিয়ে হইচই ফেলে দেয় উইকিলিকস। এরপর এর প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে সুইডেনে যৌন হয়রানির অভিযোগে মামলা হয়। গ্রেফতার এড়াতে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে আশ্রয় নেন অস্ট্রেলীয় নাগরিক অ্যাসাঞ্জ।