বাংলা ডট এসই (Bangla.se) দেশের বাইরে ইন্টারনেটে পঠিত সবচেয়ে জনপ্রিয় বাংলা সংবাদ ও মিডিয়া মাধ্যম। আপনার খবর, বিজ্ঞাপন ও মিডিয়া সংযোগে আমাদেরকে ইমেইল করুন।   
ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, এশিয়াঃ যেখানেই বাঙালী, সেখানেই আমরা আপনার পাশে আপনার খবর নিয়ে।   
বাংলা ডট এসই (Bangla.se) দেশের বাইরে ইন্টারনেটে পঠিত সবচেয়ে জনপ্রিয় বাংলা সংবাদ ও মিডিয়া মাধ্যম। আপনার খবর, বিজ্ঞাপন ও মিডিয়া সংযোগে আমাদেরকে ইমেইল করুন।   
ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, এশিয়াঃ যেখানেই বাঙালী, সেখানেই আমরা আপনার পাশে আপনার খবর নিয়ে।   
বাংলা ডট এসই (Bangla.se) দেশের বাইরে ইন্টারনেটে পঠিত সবচেয়ে জনপ্রিয় বাংলা সংবাদ ও মিডিয়া মাধ্যম। আপনার খবর, বিজ্ঞাপন ও মিডিয়া সংযোগে আমাদেরকে ইমেইল করুন।   
ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, এশিয়াঃ যেখানেই বাঙালী, সেখানেই আমরা আপনার পাশে আপনার খবর নিয়ে।   
বাংলা ডট এসই (Bangla.se) দেশের বাইরে ইন্টারনেটে পঠিত সবচেয়ে জনপ্রিয় বাংলা সংবাদ ও মিডিয়া মাধ্যম। আপনার খবর, বিজ্ঞাপন ও মিডিয়া সংযোগে আমাদেরকে ইমেইল করুন।   
ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, এশিয়াঃ যেখানেই বাঙালী, সেখানেই আমরা আপনার পাশে আপনার খবর নিয়ে।   
বাংলা ডট এসই (Bangla.se) দেশের বাইরে ইন্টারনেটে পঠিত সবচেয়ে জনপ্রিয় বাংলা সংবাদ ও মিডিয়া মাধ্যম। আপনার খবর, বিজ্ঞাপন ও মিডিয়া সংযোগে আমাদেরকে ইমেইল করুন।   
ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, এশিয়াঃ যেখানেই বাঙালী, সেখানেই আমরা আপনার পাশে আপনার খবর নিয়ে।   
বুধবার, ২২ নভেম্বর 2017/Bangla.se is the First & most popular Online News & Entertainment from EU. আমাদের সাথে থাকুন এবং সারা বিশ্বে আপনার খবর সবার কাছে উপস্থাপন করুন। Share your News with us. Email: news@bangla.se

শিরোনামঃ
মোহাম্মদ আলীর একজন বাঙালি বন্ধু ও শুভানুধ্যায়ী PDF Print E-mail


গত শুক্রবার ৩ জুন ২০১৬ বিশ্বখ্যাত বক্সার মোহাম্মদ আলী ৭৪ বছর বয়সে শেষ নিশ্বাষ ত্যাগ করেছেন। মোহাম্মদ আলী যৌবনের,  বিজয়ের ও বিদ্রোহের প্রতীক ছিলেন। ভিয়েতনাম যুদ্ধে যেতে তিনি অস্বীকার করেছিলেন। তিনি ছিলেন আশাহীনদের কাছে আশার আলো।
এই মানুষটির একজন বাঙ্গালি বন্ধু ও শুভানুধ্যায়ী ছিলেন,যা প্রায় অজনা।সে সত্য কাহিনী কিছুটা জানুন।

মোহাম্মদ আলী ও শ্রী চিন্ময় ১৯৭৯ সালের ৩০ শে জানুয়ারি জাতিসংঘের খুব কাছের ইউ এন প্লাজা হোটেলে মিলিত হয়েছিলেন। এসময়ে আলী জাতিসংঘ সফরে এসেছিলেন।তাঁরা দুজন ধর্ম ও আধ্যাত্মিকতা নিয়ে আলাপ করেছিলেন।মেডিটেশন গ্রুপের গায়কের দল মোহাম্মদ আলীকে নিয়ে রচিত শ্রী চিন্ময়ের একটি গান গেয়ে শোনান।গানটির শিরোনাম ছিল ‘গ্রেটার দেন দা গ্রেটেষ্ট’। এটি ছিল শ্রী চিন্ময়ের সাথে মোহাম্মদ আলীর তৃতীয় সাক্ষাৎ। তাদের সাক্ষাতে বিভিন্ন বিষয় আলোচনা হয়েছিল।নিচে তা উল্লেখ করা হলো।
মোহাম্মদ আলীঃ আর্নি সেভার্সের সাথে মুষ্ঠিযুদ্ধের শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট বিজয়ের জন্য লড়াইর আগে সেপ্টেম্বর ১৯৭৭ সালের সকালের  কথা স্মরণ করে শ্রী চিন্ময়কে বলেন, ‘ভাই, গতবার লড়াইতে জয়ী হতে আপনি আমাকে অনেক সাহস যুগিয়ছিলেন’।মুসলিম প্রথা মতো আলী শ্রী চিন্ময়কে জড়িয়ে ধরে সাদরে গ্রহন করেন এবং বলেন   ‘আপনাকে দেখতে ভাল লাগছে, আপনাকে এখনো যুবকের মতো লাগছে এবং খুব সুন্দর দেখাচ্ছে।মানুষ হয়তো ভাবছে আপনি আমাকে ধর্মান্তরিত করছেন কিন্তু আমাকে কেউ ধর্মান্তরিত করতে পারবেনা।
শ্রী চিন্ময়ঃ এটা একদম সত্যি; আপনার সব কিছুই আল্লাহর জন্য। আমি আপনাকে ধর্মান্তরিত করতে আসিনি।আমি জন্মগতভাবে হিন্দু। কিন্তু যখন থেকে প্রার্থনা ও মেডিটেশন শুরু করি,তারপর থেকে আমার কোন ধর্ম নেই।আমি সব ধর্মের।
মোহাম্মদ আলীঃ বাহ ! এটা খুব ভালো।আমিও আপনাকে প্রমান করতে পারি যে আমি ধর্মের উর্ধে। আলী এসময়ে দ্রুত তাঁর ব্রিফকেস খুলে তিন চারটি বই বের করেন এবং ইউরোপের সুফি ধারার নেতা পীর বিলায়েত খানের বাবা হযরত ইনায়েত খানের লিখিত একটি বই দেখান।
শ্রী চিন্ময়ঃ আমি তাঁকে দেখিনি কিন্তু তাঁর ছেলে পীর বিলায়েত আমার খুব ভালো বন্ধু। আমি আপনার উপর এবং আপনার আঁকা ছবির উপর একটি গান লিখেছি।
মোহাম্মদ আলীঃ আমার আঁকা ছবির উপর ? কখন আমি তা শুনতে পাব ?
শ্রী চিন্ময়ঃ নিচে কিছু শিল্পী অপেক্ষা করছে; আপনি যদি তা শুনতে চান।
মোহাম্মদ আলীঃ দয়া করে তাদের উপরে আসতে বলুন। মোহাম্মদ আলী গায়ক গায়িকাদের স্বাগত জানান এবং বলেন, ‘তোমারা সবাই খুব পরিচ্ছন্ন ও সুন্দর। সবাই যদি আপনার মতো ভাবতে পারতো তাহলে আমাদের পৃথিবীতে মানব জাতির মধ্যে শুধু শান্তি ও একতাই থাকতো। এসময় মেডিটেশন গ্রুপের শিল্পীরা ‘গ্রেটার দ্যান দ্যা গ্রেটেষ্ট’ সঙ্গীতটি পরিবেশন করেন।
মোহাম্মদ আলীঃ গানটি খুব সুন্দর হয়েছে। আপনি আমাকে নিয়ে গান লিখেছেন এবং এখানে এসে গানটি শুনালেন।কিন্তু আমি একটা কথা বলতে চাই। যে চেতনা থেকে আপনি গানটি লিখেছেন তা আমি বুঝি।কিন্তু আমি গ্রেটেষ্ট নই। একমাত্র আল্লাহ-ই গ্রেটেষ্ট,সর্বশক্তিমান। নাম, সুনাম ও প্রভাব পতিপত্তি মানুষকে অহংকারি ও দূষিত করে ফেলে এবং তখন মানুষ অস্বাভাবিক আচরণ করে।আমি সব সময় স্বাভাবিক থাকতে চাই। আল্লাহর কাছে আমি সব সময় প্রার্থনা করি আমাকে শক্তিশালি,বিনয়ি ও নিরহংকারি রাখার জন্য। একমাত্র আল্লাহই সর্ব শক্তিমান আখ্যা পেতে পারেন।
শ্রী চিন্ময়ঃ সারা বিশ্ব থেকে সর্বোচ্চ সম্মান পাওয়ার পরও আপনি বিনয়ি ও অমায়িক আচরণ অক্ষুন্ন রেখেছেন। সেজন্যই আপনি গ্রেটার দ্যান দ্যা গ্রেটেষ্ট।
মোহাম্মদ আলীঃ গানটি আমার খুব ভাল লেগেছে। আপনি আমার অনেক প্রশংসা ও সুনাম করেছেন। কিন্তু একমাত্র আল্লাহ-ই সর্ব শক্তিমান।আমি যদি নিজেকে সর্ব শক্তিমান বলি তাহলে তাঁর দৃষ্টিতে আমি অপরাধি হব। আমি সর্বশক্তিমান নই। আমি আপনাকে ও বিশ্বকে বলতে চাই যে তিনিই সর্ব শক্তিমান। গানে আপনি কী বোঝাতে চেয়েছেন তা আমি জানি। একজন মানুষ কাউকে হত্যা করতে পারে।কিন্ত সৃষ্টিকর্তা যেহেতু সব কিছু জানেন,তিনি হয়তো কাউকে শাস্তি নাও দিতে পারেন এবং ভাবেন,কোথাও  হয়তো কোন ভুল হচ্ছে। আমি স্রষ্টা সম্পর্কে কি রকম অনুভব করি তা যদি আপনাকে না বলি তাহলে স্রষ্টা আমাকে শাস্তি দেবেন।তাই এটা বলা আমার দায়িত্ব যে আমি শ্রেষ্ঠ বক্সার।কিন্ত গ্রেটার দেন গ্রেটেষ্ট নই । এটা একমাত্র আল্লাহ।আমি গড নই। এটা আমি বলছি যাতে আপনি বুঝতে পারেন আমি কিরকম অনুভব করি।
শ্রী চিন্ময়ঃ একটু আগে আপনি বলছিলেন,নদী ও পুকুর সবই সাগরে মিশে একাত্ব হয়ে যায়। পুত্রের প্রার্থনা ও মেডিটেশনের মাধ্যমে যখন পিতা ও পুত্র পুরাপুরি এক হয়ে যায়,তখন আপনি যদি পিতা সম্পর্কে কিছু বলেন তখন পুত্র আনন্দিত ও গর্বিত হয়,আর আপনি যদি পুত্র সম্পর্কে কিছু বলেন তখন পিতা আনন্দিত হন।
মোহাম্মদ আলীঃ আমি এটাকে নিয়ে এভাবে কখনো ভাবিনি। এরপর গানের শিল্পীদের দিকে ঘুরে বলেন,উনি একজন জ্ঞানী মানুষ।এখন আমি বুঝছি,কেন তোমরা তাঁর সাথে থাক।
শ্রী চিন্ময়ঃ  পুত্রের গৌরবে পিতা গর্বিত ।আর পিতার কথা চিন্তা করে পুত্রও খুব গর্ব অনুভব করেন।
মোহাম্মদ আলীঃ অনেক ধন্যবাদ।আজ যদি এটাই আমি বুঝে থাকি তাহলে এদিনটি আমার হারিয়ে যাবেনা।
এর আগে ১৯৭৭ সালের ২৯ শে সেপ্টেম্বার বক্সিং এ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ানশিপের শ্রেষ্ঠত্বের জন্য আরেক মুষ্ঠিযোদ্ধা আর্নি সেভার্স এর সাথে  লড়াইর দিন সকাল বেলা মোহাম্মদ আলী একঘন্টার জন্য শ্রী চিন্ময়ের সাথে ধর্মীয়,আধ্যাত্মিক বিষয়ে আলাপ আলোচনা ও মেডিটেশনের জন্য মিলিত হন। শ্রী চিন্ময়ের অনুসারি ত্রিশ জন ছাত্র ছাত্রীর একটি দল মোহাম্মদ আলীকে নিয়ে শ্রী চিন্ময়ের লিখিত একটি গান গেয়ে শোনান।তাঁরা দুজন একসাথে কুড়ি মিনিট নীরবে মেডিটেশন করেন। সব শেষে মোহাম্মদ আলী শ্রী চিন্ময়কে বলেন,আমি গভীর ভাবে আবিভূত; আবেগে আমি কিছুই করতে পারছিনা। শ্রী চিন্ময়ের গ্রুপটির বিদায় বেলায় মোহাম্মদ আলী আরো বলেন,এটা আমার মানসিক ও আধ্যাত্মিক শক্তিকে বিপুল্ভাবে বাড়িয়ে দিয়েছে। এখন লড়াইটা এক রাউন্ডেও শেষ হয়ে যেতে পারে। স্রষ্টা আপনাদের মঙ্গল করুক। এখানে সংক্ষিপ্ত ভাবে তাঁদের দুজনের কথোপকথন উল্লেখ করা হলো।
শ্রী চিন্ময়ঃ গতকাল আমাদের খুব দৃঢ় প্রত্যাশা ছিল, আপনাকে  জাতিসংঘে সাদর অভ্যর্থনা জানাব। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে আপনি জাতিসংঘে আসতে পারেন নি। আমরা জাতিসংঘে সপ্তাহে দুদিন মেডিটেশন ও প্রার্থনায় মিলিত হই। মঙ্গলবার ও শুক্রবার আমরা বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক প্রতিনিধি ও ষ্টাফদের সাথে  প্রার্থনায় মিলিত হই। সেখানে আপনার জন্য আমার গভীর কৃতজ্ঞতা জানাবো।কারন আপনি শুধু কালো মুসলিমদের জন্য নয়,সমগ্র মানব জাতির জন্য লড়াই করছেন। আপনি বিশ্বের চেহারা ও বিশ্বাসকেও বদলিয়ে দিচ্ছেন। আপনার নামই মানুষকে উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করে। যখনই মানুষ শোনে মোহাম্মদ আলী তখনই তারা অনুপ্রাণিত হয়। তারা ভীষন আনন্দ পায়।মানুষ মোহাম্মদ আলী নামটি শুনলেই স্বতঃস্ফূর্তভাবে এক ধরনের উদ্দীপনা,সাহস ও প্রাণশক্তি পায় ও অজ্ঞতাকে রুখে দাঁড়াতে পারে। আপনার নামটাই অনুপ্রেরণার । সেজন্যই আমি আপনার কাছে কৃতজ্ঞ এবং আপনার জন্য গর্বিত।
মোহাম্মদ আলীঃ আমার স্বপ্ন আমি একদিন আপনার মতো হতে পারবো।মানবতার ও স্রষ্টার জন্য এবং শান্তির জন্য কাজ করতে পারবো।তখন আমি খেলার জগৎ থেকে বেরিয়ে আসব। আমি জেরেমিয়াকে বলছিলাম যে, আমাদের বক্সিং শেষ হলে জানতে হবে, আমরা কিভাবে খেলার এই জীবন থেকে বেরিয়ে আসবো এবং আমার জনপ্রিয়তাকে ও বুদ্ধিকে কোনভাবে মানব জাতির সেবায় ও মঙ্গলের কাজে লাগানো যায়। আমি জানিনা কিভাবে করবো কিন্তু আমি স্রষ্টার জন্য, মানুষের সেবায় সব মানুষকে  সুখে শান্তিতে থাকার জন্য একতাবদ্ধ করতে চাই।আমাকে কিছু করতে হবে,এটা আমি বুঝি কিন্তু কি করতে হবে তা আমি জানিনা।তবে কিছু একটা করতে হবে। পৃথিবীতে মহান অনেক মানুষ আছেন কিন্তু আল্লাহ-ই শ্রেষ্ঠ ও মহান। আমাকে গ্রেটেষ্ট বলা বন্ধ করতে হবে এবং এসব ভুলে যেতে হবে।
আমি একজন বিনত ভৃত্য মাত্র এবং আমাকে অনেক কিছু জানতে হবে। আপনার মতো মানুষদের আমার দরকার যারা আমাকে শিক্ষা দিবেন, কি বলতে হবে, কি করতে হবে এবং কোন কিছুর সাথে কিভাবে সম্পর্ক স্থাপন করতে হবে। সুতরাং আমি গ্রেটেষ্ট এসব মনোভাবের কথা ও প্রশংসা শুনতে চাইনা।আমি কি বলতে চাচ্ছি তা কি আপনি বুঝতে পারছেন?
 শ্রী চিন্ময়ঃ আপনাকে বলতে হবেনা যে আপনি গ্রেটেষ্ট; কিন্তু মানবতার   সাথে একাত্ব হওয়ার যে  হৃদয় আপনার রয়েছে তাই আপনাকে গ্রেটেষ্ট বানিয়েছে।
পরদিন নিউ ইয়র্ক টাইমসে মোহাম্মদ আলীর ঐতিহাসিক বিজয়ের যে সংবাদ ছাপা হয়  তাতে দুটি ছবি ছিল। প্রথমটিতে মোহাম্মদ আলী ও শ্রী চিন্ময় গতকাল সকালে যে মেডিটেশনে মিলিত হয়েছিলেন তার ছবি। আরেকটিতে বিকেলে মোহাম্মদ আলী, আর্নি সেভার্সকে পরাজিত করে যে বিজয়ীর মুকুট পেয়েছিলেন সেই বক্সি খেলার ছবি।
শ্রী চিন্ময় বাংলাদেশের চট্টগ্রামে জন্ম নেয়া একজন বাঙালি যিনি ছিলেন আধ্যাত্মিক ও ফিটনেস গুরু। জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেল উ থান্টের অনুরোধে তিনি জাতিসংঘের মূল ভবনে মেডিটেশন করাতেন। বিশ্ব শান্তি দূত হিসেবে পরিচিত এ মানুষটি শান্তির সন্ধানে ও মানব জাতিকে একাত্ব হৃদয় করার জন্য সব মহাদেশে চারণের বেশে ঘুরে বেড়িয়েছিলেন।

মোহাম্মদ আলী বার্ধক্যে পারকিনসন রোগে দীর্ঘ দিন অসুস্থ ছিলেন। এসময়ে মাঝে মাঝে তিনি শ্রী চিন্ময়ের দর্শনের ভিত্তিতে করা ওয়াশিংটন ডি সি তে শিশুদের একটি স্কুলে মাঝে মাঝে যেতেন এবং শিশুদের সাথে খেলতেন,গল্প করতেন।নিরহংকার,বিনয়ি মানুষটি শিশুদের মাধ্যমে হয়ত ভবিষ্যতের জাতি,ধর্ম,বর্ণের উর্ধে একাত্ব বিশ্ব সম্প্রদায়ের স্বপ্ন দেখতেন। মানব সেবার যে স্বপ্ন তাঁর ছিল অসুস্থতার জন্য অনেক স্বপ্নই তাঁর  অপূর্ণই রয়ে গেল।

শ্রী চিন্ময় সেন্টার প্রেস বিজ্ঞপ্তি 

 

বাংলাদেশ...                                                            

বিনোদন...                                                              

প্রবাশ...                                                                  

বিশ্ব...                                                                     

কোরআন/ হাদিস বানী

সূরা বাকারা

এবং নিশ্চয় তুমি তাদেরকে অন্যান্য লোক এবং মুশরিকদের অপেক্ষাও অধিকতর আয়ু-আকাক্সক্ষী পাবে; তাদের মধ্যে প্রত্যেকে কামনা করে যেন তাকে হাজার বছর আয়ু দেয়া হয় এবং ঐরূপ আয়ু প্রাপ্তিও তাকে শাস্তি থেকে মুক্ত করতে পারবে না এবং তারা যা করছে আল্লাহ তা দেখেন।

Tarique Rahman's Speech | York Hall, London | 29 September 2014